1. admin@kalerkolorob24.com : kalerkolorob24.com :
শনিবার, ০৬ মার্চ ২০২১, ০৫:৪৬ অপরাহ্ন

বিজয়নগরে আরডি আরএস বাংলাদেশ সংস্থার ৪৯ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত

প্রতিবেদকের নাম:
  • প্রকাশিত: সোমবার, ৮ ফেব্রুয়ারী, ২০২১
  • ৮৭ বার পড়া হয়েছে

ব্রাহ্মনবাড়িয়া বিজয়নগরে, আরডি আরএস বাংলাদেশ সংস্থার ৪৯ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী কেক কেটে পালিত হয়। আজ সোমবার (৮ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় ইচ্ছাপুরা ইউনিয়নে বিজয়নগর উপজেলা শাখা’র আরডি আরএস অফিস কার্যালয়ে ৪৯ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত হয়। বিজয়নগর শাখা ব্যবস্থাপক মোঃ ময়নুল ইসলাম এর সভাপতিত্বে প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত হয়।

আরডিআরএস বাংলাদেশ এর সংক্ষিপ্ত ইতিহাস:-
আরডি আরএস বাংলাদেশ একটি জাতীয় বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা। পূর্বে সংস্থাটি একটি আর্ন্তজাতিক বেসরকারী সংস্থা ছিল। তখন এ সংস্থার নাম ছিল আরডিআরএস (রংপুর দিনাজপুর ত্রান ও পূর্নবাসন সংস্থা)। সে সময় এ সংস্থাটি জেনেভার Luthern world federation department of world serviceএর আওতায় বাংলাদেশ কান্ট্রি প্রোগ্রাম হিসাবে পরিচিত ছিল।

১৯৭২ সালে ত্রান ও পূনর্বাসনের মাধ্যমে বাংলাদেশে এ সংস্থার কার্যক্রম শুরু হয়। দেশ স্বাধীন হবার পর যুদ্ধ বিদ্ধস্ত বাংলাদেশের অবস্থার উন্নয়নের পরিপ্রেক্ষিতে সংস্থা হাতে নেয় ত্রান ও পূনর্বাসন কর্মসূচি। বাংলাদেশে কাজ করার জন্য বেছে নেয়া হয় সর্বাধিক ক্ষতিগ্রস্থ ও অবহেলিত এলাকা রংপুর ও দিনাজপুর অঞ্চল। কর্মএলাকার নাম অনুসারে সংস্থার নামকরন করা হয় ‘‘রংপুর দিনাজপুর ত্রান ও পূনর্বাসন সংস্থা (Rangpur Dinagpur Relief & Rehabilitation Service” (RDRS)|

১৯৯৭ সালে আরডিআরএস স্বায়ত্বশাসিত বাংলাদেশী সংস্থায় রূপ নেয়। নামকরণ করা হয় Rangpur Dinagpur Rural Service” (RDRS)।

আরডি আরএস বাংলাদেশ এর লক্ষ্য, উদ্দেশ্য ও কৌশলগত লক্ষ্য সমূহ:-

লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য:-
লক্ষ্য: গ্রামীণ দরিদ্র জনগোষ্ঠী ব্যক্তিগত ও সমষ্টিগত প্রচেষ্টায় অর্থবহ রাজনৈতিক, সামাজিক এবং অর্থনৈতিক ক্ষমতায়ন, মানসম্মত জীবনযাপন, ন্যায়বিচার এবং টেকসই পরিবেশ অর্জন করবে।

উদ্দেশ্য: আরডি আরএস বাংলাদেশ গ্রামীণ দরিদ্র জনগোষ্ঠী এবং তাদের সংগঠনের সাথে কাজ করছে, যাতে তারা নাগরিক অধিকার সম্পর্কে জানে ও প্রতিষ্ঠা করতে পারে; ক্ষমতায়নের জন্য প্রয়োজনীয় যোগ্যতা ও আত্মবিশ্বাস এবং প্রতিবন্ধকতা মোকাবেলার সক্ষমতা অর্জন করতে পারে; এবং স্থানীয় প্রতিষ্ঠানসমূহে সুশাসন উন্নয়ন করতে পারে এবং মানসম্মত জীবনযাপনের জন্য প্রয়োজনীয় সুযোগ, সম্পদ ও সেবায় প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর প্রবেশ বৃদ্ধি করতে পারে।

কৌশলগত লক্ষ্যসমূহ:-
আরডিআরএস উদ্দেশ্য সাধনের স্বার্থে সংস্থার উন্নয়ন উদ্যোগ গ্রহণের নির্দেশনা হিসেবে নিম্নোক্ত কৌশলগত লক্ষ্য সমূহ নির্ধারণ করা হয়েছে:-

সার্বিকভাবে, আরডিআরএস এর লক্ষ্যসমূহ:
বাংলাদেশের গ্রামীণ দরিদ্র জনগণের অধিকার নিশ্চিত করা।

নাগরিকত্বের সম্পূর্ণ সুবিধা লাভ করা; এবং সেজন্য বিচ্ছিন্নতা, বৈষম্য, শোষণ ও অবিচার প্রতিরোধ করা (নারী, ভূমিহীন, হতদরিদ্র, চরের অধিবাসী, সংখ্যালঘু আদিবাসী, শারীরিক প্রতিবন্ধীদের প্রতি)।
দরিদ্র জনগণকে সংগঠিত করা, তাদের প্রতিনিধিত্ব করা এবং তাদেরকে কথা বলানো ও তাদের কথা বলা।

টেকসই জীবিকা (খাদ্য নিরাপত্তাসহ)
মানসম্মত জীবন-যাপন (সামাজিক সেবাসমূহ ও স্বাস্থ্যসেবায় প্রবেশসহ)

ক্ষয়ক্ষতি থেকে সুরক্ষা (পারিবারিক ও সামাজিক দ্বন্দ্ব, দুর্যোগ, পরিবেশ বিপর্যয় এবং জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবসহ)

মূলধারার কার্যক্রম ও প্রাধান্য:-
কার্যক্রমসমূহকে চারটি প্রধান ধারায় বিভক্ত করে আরডিআরএস কৌশলপত্র বাস্তবায়িত হয়। সুনির্দিষ্ট উন্নয়ন উদ্যোগের ভিত্তি হিসেবে এই কার্যক্রম ধারাসমূহ কৌশলগত লক্ষ্য পূরণের নিমিত্তে উন্নয়নের বিভিন্ন শাখায় ভাগ করে নেওয়া হয়। উন্নয়নের কোন কোন ক্ষেত্র সব প্রধান কার্যক্রমের মধ্যেই অন্তর্ভূক্ত রাখা হয়েছে এবং ক্ষেত্রবিশেষে, এই গুরুত্বপূর্ণ উন্নয়ন দিকগুলো সম্পূরক হিসেবে বিবেচনা করা হয়েছে।

এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে আরডি আরএস বাংলাদেশ সংস্থার ৪৯ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী কেক কাটেন ইচ্ছাপুরা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জিয়াউল হক (বকুল)। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্হিত ছিলেন, আরডি আরএস বাংলাদেশ বিজয়নগর শাখার হিসাব কর্মকতা, জীবন চন্দ্র সরকার, বিজয়নগর উপজেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি, শেখ এমরানুল ইসলাম, আরডি আরএস বিজয়নগর উপজেলাে সংস্থার কর্মকর্তা কর্মচারী, স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

কালের কলরব/হালিমা খানম/-

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত